শেষ অটোমান সুলতানের দৌহিত্রীর আয়া সোফিয়া পরিদর্শন

আয়া সোফিয়ায় জুমা অনুষ্ঠিত হওয়ার পর তা পরিদর্শন করতে যান অটোমান খেলাফতের সর্বশেষ সুলতান দ্বিতীয় আবদুল হা'মিদের দুই দৌহিত্রী নিলহান উসমান উগলু ও উরহান হারুন উগলু।

গত শনিবার (২৫ জুলাই) আয়া সোফিয়া পরিদর্শনকালে তোলা একটি ছবি ইনস্টগ্রামে বেশ সাড়া জাগায়। ছবির কমেন্টে তিনি ‘নতুন সূর্য উদয়ে মুসলিম'দের স্বাগত’ জানান।

সম্প্রতি আলজাজিরা নেটে প্রকাশিত এক সাক্ষাতকারে আয়া সোফিয়ায় নামাজ শুরু হওয়ার বি'ষয়ে নিলহান উগলু বলেন, ‘স্মর'ণীয় এ মুহূর্তের জন্য আমর'া কয়েক যুগ পর্যন্ত অ’পেক্ষা করেছি। উসমানি সম্রাজ্যের একজন উত্তরসূরী হিসেবে এ বিজয়ে আমি খুবই আবেগ আপ্লুত।

সাক্ষাতাকারে নিলহান উগলু আরও বলেন, অনেকে উসমানি খেলাফতকে দখলদার বলে মনে করে। অথচ সুলতান মুহা'ম্মা'দ ফাতেহ ধ'র্মীয় সম্প্রীতি বজায় রেখে শাসনকার্য পরিচালনা করতেন। আয়া সোফিয়া ওয়াকফের মাধ্যমে অমুসলিম'দের সম্মান-মর'্যাদা ও অর্থ-সম্পদের নিরাপ'ত্তার ব্যবস্থা করেন। অমুসলিম'দের উসমানি সম্রাজ্যে স্বাধীনভাবে বসবাসের সুযোগ করে দেন। তাই সুলতান ফাতেহ বিশ্ববাসীর জন্য উদারতা ও সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।

উসমানি খেলাফতের সর্বশেষ সুলতান ছিলেন দ্বিতীয় আবদুল হা'মিদ। তিনি ১৯১৮ সালে ইস্তাম্বুলে মৃ'ত্যু বরণ করেন। তাঁর চতুর্থ ও পঞ্চম প্রজম্ম হলেন নিলহান উসমান উগলু ও উরহান হারুন উগলু।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার (২৪ জুলাই) আয়া সোফিয়ায় দীর্ঘ সাড়ে ৮ দশক পর নিয়মিত নামাজ শুরু হয়। ইতিপূর্বে গত ১১ জুলাই তুরস্কের সর্বোচ্চ আ'দালত ১৯৩৪ সালের নভেম্বরে আধুনিক তুরস্কের জনক কামাল আতাতুর্ক মন্ত্রিপরিষদের জাদুঘর করার সি'দ্ধান্ত বাতিল ঘোষণা করে এবং পুনরায় তা মসজিদে রূপান্তরের নির্দেশ দেয়।

সূত্র : টিআরটি ও আল জাজিরা নেট