আয়া সোফিয়া : ইতিহাস ও ভূরাজনৈতিক তাৎপর্য

ইউরোপ ও এশিয়ার স'ঙ্গমস্থলে অবস্থিত দেশ তুরস্কের সাবেক রাজধানী ইস্তানবুল (ইস্তাম্বুল)। ইস্তানবুল শহরের ফাতিহ এলাকায় অবস্থিত বিশ্বখ্যাত ‘আয়া সোফিয়া’ যা ‘হাজিয়া সোফিয়া’ নামেও পরিচিত। একসময় এটি ছিল খ্রিষ্টান বিশ্বের প্রধান ধ'র্মীয় উপাসনালয়। পঞ্চদশ শতকের মাঝামাঝি সময় থেকে বিশ শতকের ত্রিশের দশক পর্যন্ত এটি ছিল তুরস্কের মুসলমানদের অন্যতম প্রধান মসজিদ। ১৯৩৪ সালে তুরস্ক প্রজাতন্ত্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট মুস্তফা কামাল আতাতুর্ক (১৮৮১-১৯৩৮) একে মসজিদ থেকে জাদুঘরে রূপান্তরিত করেন। গত ১০ জুলাই ২০২০ শুক্রবার তুরস্কের প্রশাসনিক আ'দালত এক ঐতিহাসিক রায়ের মাধ্যমে আয়া সোফিয়াকে জাদুঘর থেকে আবার মসজিদে রূপান্তরিত করার নির্দেশ দেন। প্রশাসনিক আ'দালতের উপর্যুক্ত রায়ের পর দীর্ঘ ৮৬ বছর পর আয়া সোফিয়ার সুউচ্চ মিনার থেকে আজানের ধ্বনি উচ্চারিত হয়। এ সময় আয়া সোফিয়ার উন্মুক্ত চত্বর ও আশপাশের এলাকায় সমবেত তুর্কিরা জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে আল্লাহু আকবর ধ্বনিতে মুখরিত করে তুলে সেখানকার পরিবেশ।

গ্রিক বাইজান্টাইন সাম্রাজ্যের রাজধানী ছিল ঐতিহাসিক কনস্টান্টিনোপল নগরী। এ শহরেই সম্রাট প্রথম জাস্টিনিয়ান ৫৩৭ খ্রিষ্টাব্দে ‘আয়া সোফিয়া’ নামে একটি ক্যাথেড্রাল বা অর্থোডক্স গির্জা নির্মাণ করেন। গ্রিক পুরাণ মতে, ‘সোফিয়া’ হচ্ছেন জ্ঞানের দেবী। আর গ্রিক ভাষার ‘আয়া সোফিয়া’কে অনুবাদ করলে এর অর্থ দাঁড়ায় ‘পবিত্র জ্ঞান’। ১২০৪ খ্রিষ্টাব্দে চতুর্থ ক্রুসেডের মাধ্যমে ইউরোপের ক্যাথলিক খ্রিষ্টানরা কনস্টান্টিনোপল দখল করে নিলে ৫৭ বছরের জন্য আয়া সোফিয়া ‘ক্যাথলিক গির্জায়’ রূপান্তরিত হয়েছিল। ১২৬১ খ্রিষ্টাব্দে ক্যাথলিকদের পরাজয়ের ফলে আয়া সোফিয়া আবারো অর্থোডক্স গির্জায় রূপান্তরিত হয়। আয়া সোফিয়া ছিল পূর্বাঞ্চলীয় অর্থোডক্স খ্রিষ্টানদের প্রধান ধ'র্মীয় কেন্দ্রবিন্দু। এটি বাইজান্টাইনদের গু'রুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক কেন্দ্রও ছিল। বাইজান্টাইন সম্রাটদের রাজমুকুট সংরক্ষণ ও তাদের রাজ্যাভিষেকসহ বিভিন্ন রাজকীয় অনুষ্ঠানের কাজেও আয়া সোফিয়াকে ব্যবহার করা 'হতো।

১৪৫৩ সালে উসমানী সুলতান দ্বিতীয় মুহা'ম্ম'দ সম্রাট একাদশ কনস্টান্টাইন প্যালিওলোগাসকে পরাজিত ও হ'ত্যা করে মধ্যযুগের অন্যতম গু'রুত্বপূর্ণ শহর কনস্টান্টিনোপল অধিকার করেন। এই গৌরবময় বিজয়ের ফলে দ্বিতীয় মুহা'ম্ম'দকে ‘ফাতিহ’ বিজেতা উপাধি দেয়া হয়। কনস্টান্টিনোপলের ভূ-রাজনৈতিক অবস্থান ও গু'রুত্ব বিবেচনা করে দ্বিতীয় মুহা'ম্ম'দ একে উসমানী সালতানাতের রাজধানী করেন। এর নতুন নামকরণ করা হয় ‘ইস্তাম্বুল’ (বর্তমান ইস্তানবুল)।

সুলতান নগরীতে অবস্থিত বিখ্যাত ‘আয়া সোফিয়া গির্জা’টিকে মসজিদে রূপান্তরিত করার জন্য ব্যক্তিগত অর্থে খ্রিষ্টানদের কাছ থেকে এটি ক্রয় করেন। এরপর সুলতান একটি ওয়াকফ অ্যাসোসিয়েশন গঠন করে আয়া সোফিয়াকে এর মালিকানায় হস্তান্তর করেন। সুলতান ও তার স'ঙ্গীদের নামাজ আ'দায়ের মধ্য দিয়ে আয়া সোফিয়াকে অর্থোডক্স গির্জা থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে মসজিদে রূপান্তরিত করা হয়। ১৬১৭ সালে Blue Mosque বা ‘সুলতান আহমেদ মসজিদ’ নির্মাণের আগ পর্যন্ত এটি ছিল ইস্তাম্বুলের প্রধান রাজকীয় মসজিদ।

প্রথম বিশ্বযু'দ্ধের পর ১৯২৩ সালে তুরস্কে উসমানী সালতানাত এবং ১৯২৪ সালে খিলাফত উচ্ছেদ করা হয়। তুর্কি প্রজাতন্ত্রের প্রেসিডেন্ট মুস্তফা কামাল পাশা তুরস্ককে একটি আধুনিক ধ'র্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রে পরিণত করেন। অনেক মসজিদের দ্বার তিনি বন্ধ করে দেন। এরই ধা'রাবাহিকতায় ১৯৩৪ সালে প্রেসিডেন্ট মুস্তফা কামাল পাশা ৪৮২ বছর ধরে মসজিদ হিসেবে ব্যবহৃত আয়া সোফিয়াকে একটি জাদুঘরে রূপান্তর করেন।

আয়া সোফিয়াকে জাদুঘরের রূপান্তরের প্রতিক্রিয়া হিসেবে দীর্ঘ দিন ধরে তুরস্কের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে টানাপড়েন চলছে। আয়া সোফিয়াকে জাদুঘরে রূপান্তর করার সি'দ্ধান্তের বিরু'দ্ধে তুরস্কে ডানপন্থী রাজনৈতিক দল ও ধ'র্মপ্রাণ মুসলমানরা শুরু থেকে প্রতিবাদ এবং একে মসজিদে পুনঃরূপান্তরের দাবি অব্যা'হত রেখেছে। অন্য দিকে কামালপন্থী সেকুলাররা তুরস্কের ধ'র্মনিরপেক্ষতার দোহাই দিয়ে আয়া সোফিয়াকে জাদুঘর হিসেবে রাখার পক্ষে জোরালো মত দিয়ে এসেছে। ইসলামপন্থী একে পার্টি ক্ষমতায় আসার পর ২০০৫ সালে সর্বপ্রথম এ আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পুনঃরূপান্তরের দাবিতে Permanent Foundation Service to Historical Artifacts and Environment Association নামক একটি সংগঠন আ'দালতে মা'মলা করে। মা'মলার আরজিতে বলা হয়েছিলÑ আয়া সোফিয়া একটি ওয়াকফ সম্পত্তি। এটি সুলতান মুহা'ম্ম'দ ফাতিহর ব্যক্তিগত অর্থে ক্রয় করে মসজিদের জন্য ওয়াকফ করেছিলেন। সুতরাং একে মসজিদের পরিবর্তে জাদুঘরের কাজে ব্যবহার অবৈ'ধ। তিন বছর মা'মলাটি চলার পর ২০০৮ সালে আ'দালত এ মা'মলাটি খারিজ করে দেয়। মা'মলা খারিজ হয়ে গেলেও বাদিপক্ষ আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পুনঃরূপান্তরের পক্ষে জনমত তৈরির অব্যা'হত চেষ্টা চালিয়ে যায়। প্রেসিডেন্ট এরদোগান বরাবরই এক মসজিদে পুনঃরূপান্তরের পক্ষে ছিলেন।

গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে এটি ছিল তার অন্যতম নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি। এরূপ একটি বাস্তবতায় পূর্বোক্ত সংগঠনটি আবারো আ'দালতের শরণাপন্ন হয়। আ'দালত শুনানি শেষে ১০ জুলাই ঐতিহাসিক রায়ে বলে যে, ‘১৯৩৪ সালে মন্ত্রিসভার যে সি'দ্ধান্ত অনুযায়ী মসজিদ থেকে আয়া সোফিয়াকে জাদুঘরে রূপান্তরিত করেছিল, তা আইন মেনে করা হয়নি।’ অতএব আ'দালত ওই সি'দ্ধান্ত বাতিল করে আয়া সোফিয়াকে আবার মসজিদে রূপান্তর করার আদেশ দেন। ওই দিনই দেশটির প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোগান আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পুনঃরূপান্তরের ডিক্রিতে স্বাক্ষর করেন। আগামী ২৪ জুলাই মসজিদটি নামাজের জন্য খুলে দেয়া হবে। অবশ্য প্রেসিডেন্ট এরদোগান স্পষ্ট করেই বলে দিয়েছেন, ভবনটির সাংস্কৃতিক মূল্য বজায় রাখার স্বার্থে আয়া সোফিয়ার দ্বার জাতি-ধ'র্ম নির্বিশেষে সবার জন্য উন্মুক্ত রাখবে।

আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পুনঃরূপান্তর নিয়ে তুরস্কের অভ্যন্তরে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। তুরস্কের সংখ্যাগরিষ্ঠ তুর্কি এবং প্রায় সব রাজনৈতিক দল এ সি'দ্ধান্তকে সমর'্থন ও স্বাগত জানিয়েছে। বিরোধী রাজনৈতিক দল কামালপন্থী সিএইচপির পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো অফিসিয়াল বক্তব্য দেয়া হয়নি। তবে অবস্থাদৃষ্টে মনে হয় যে, এ বি'ষয়ে বিরোধিতা করে সোচ্চার হওয়ার তাদের খুব বেশি অবকাশ নেই। অবশ্য সংখ্যায় কম হলেও তুর্কি জনমতের একটি অংশ মনে করে খ্রিষ্টান ও মুসলিম সং'হতির প্রতীক হিসেবে আয়া সোফিয়াকে জাদুঘর হিসেবে রাখাই ভালো ছিল। ইস্তানবুলে অবস্থিত পূর্বাঞ্চলীয় অর্থোডক্স খ্রিষ্টান গির্জার প্রধান প্যাট্রিয়ার্ক প্রথম বার্থোলোমিউ আ'দালতের রায় ঘোষণার আগে গত ৭ জুলাই সতর্ক করে দিয়েছিলেন যে, এ ভবনকে মসজিদে পরিণত করা হলে সারা পৃথিবীর লাখ লাখ খ্রিষ্টান মর'্মা'হত হবে এবং দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে বিভক্তি দেখা দেবে।

গ্রিস, রাশিয়া ও মা'র্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রভৃতি দেশ আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পুনঃরূপান্তরের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। একে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট ঘোষণাকারী ইউনেস্কোও এর প্রতিবাদ জানিয়েছে। এ সি'দ্ধান্ত সাম্প্রদায়িক বিভক্তি ও তিক্তা বাড়াবে বলে রাশিয়ার অর্থোডক্স খ্রিষ্টানরা দাবি করছে। মা'র্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক প¤েপও আয়া সোফিয়ার এ পরিবর্তন দুই ভিন্ন ধ'র্মাবলম্বী মানুষের বিশ্বা'স ও সংস্কৃতির ঐক্য বিনষ্ট করবে বলে উল্লেখ করেছেন। মা'র্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মর'্গেন ওরতাগাসের এক বিবৃতিতে বলেন, এ সি'দ্ধান্তে তার দেশ ‘'হতাশ’ হয়েছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতি প্রধান জোসেফ বোররেল একে ‘দুঃখজনক’ বলে অ'ভিহিত করেছেন। আয়া সোফিয়াকে কেন্দ্র করে এরই মধ্যে তুরস্ক ও গ্রিসের মধ্যকার বাদানুবাদ ও কূটনৈতিক টানাপড়েন তু'ঙ্গে উঠেছে। কিছু দিন আগে গ্রিসের সংস্কৃতিবি'ষয়ক মন্ত্রী লিনা মেনদোনি বলেছিলেন, তুরস্ক উগ্র জাতীয়তাবাদী ও ধ'র্মীয় চেতনা জাগিয়ে তুলতে চাইছে।

আ'দালতের রায় ঘোষণার পর গ্রিসের সংস্কৃতিমন্ত্রক এ সি'দ্ধান্তের তীব্র নিন্দা করে বলেছে, সুসভ্য পৃথিবীর জন্য এটি একটি উসকানি। আয়া সোফিয়ার প্রশ্নে গ্রিসের অবস্থানের কড়া জবাব দিয়েছে তুর্কি সরকারও। তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী চাভুসোগলু এ বি'ষয়ে ‘ভাষণ’ না দেয়ার জন্য আগেই গ্রিসকে সতর্ক করে দিয়েছিলেন। তিনি গ্রিসকে মনে করিয়ে দিয়েছেন ‘এথেন্স’ই ইউরোপের একমাত্র রাজধানী, যেখানে কোনো মসজিদ নেই। এ বি'ষয়ে তুর্কি প্রেসিডেন্টের মনোভাবও বেশ কড়া। প্রেসিডেন্ট এরদোগান বলেছেন, ‘আয়া সোফিয়া মসজিদের ব্যাপারে তুরস্কের বিরু'দ্ধে গ্রিসের কর্মক'র্তাদের অ'ভিযোগ তুরস্কের জাতীয় সার্বভৌমত্বের ওপর সরাসরি আঘা'ত।’

শুধু গ্রিস নয়, আয়া সোফিয়াকে ঘিরে আন্তর্জাতিক সমালোচনাকে পাত্তা দিচ্ছে না এরদোগান। উল্টো তুরস্কের অভ্যন্তরীণ বি'ষয় নিয়ে বহির্বিশ্বকে নাক গলাতে নিষে'ধ করেছেন তিনি। প্রেসিডেন্ট বলেছেন, তুরস্কে মুসলিমর'া সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও এখানে বসবাসরত অন্যান্য ধ'র্মাবলম্বীও সমান স্বাধীনতা ভোগ করে। এরদোগান বলেন, তার দেশে ৪৩৫টি গির্জা ও ইহুদিদের ধ'র্মীয় প্রতিষ্ঠান সিনাগগ রয়েছে। সব ধ'র্মাবলম্বী এখানে নির্বিঘেœ ও স্বাধীনভাবে তাদের ধ'র্মীয় আচার-অনুষ্ঠান পালন করেন। প্রেসিডেন্ট বলেন, আয়া সোফিয়া তুরস্কের সম্পদ; যার সম্পদ সে কী তাকে জাদুঘর নাকি মসজিদ বানাবে সেটি তারই এখতিয়ার। এ প্রস'ঙ্গে তিনি স্মর'ণ করিয়ে দেন যে, স্পেনেও তো অনেক মসজিদকে পরবর্তীতে গির্জা বানানো হয়েছে। এরদোগান আরো বলেন, পৃথিবীতে লাখ লাখ মানুষ ধ'র্মীয় বিশ্বা'সের কারণে নি'হত এবং অসংখ্য মানুষ নানা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। আমা'দের উচিত সেগু'লো বন্ধ করায় মনোযোগী হওয়া।

আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পুনঃরূপান্তরের ফলে তুরস্কের রাজনৈতিক ভবি'ষ্যৎ এবং আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে দেশটির অবস্থান কী হবে? এর অর্থনৈতিক প্রতিক্রিয়াই বা কেমন হবে?Ñ এসব নিয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও পর্যবেক্ষকদের মধ্যে চলছে নানা বিচার-বিশ্লেষণ। কেউ কেউ একে দেখছেন এরদোগানের নেয়া একটি মা'রাত্মক ভুল সি'দ্ধান্ত হিসেবে। খ্রিষ্টান ও মুসলমান সম্প্রদায়েরই ধ'র্মীয় ও সাংস্কৃতিক আবেগ অনুভূ'ত ির স্থানকে কেন্দ্র করে গৃহীত সি'দ্ধান্তে এক পক্ষ খুশি হলেও বিশ্বের একটি বড় জনগোষ্ঠী অখুশি হবেন। তুরস্কের ওপর এর দীর্ঘমেয়াদি নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। কেউ কেউ মনে করছেন এ ঘটনাটি ভবি'ষ্যতে একটি বাজে নজির হিসেবে আবির্ভূ'ত 'হতে পারে। এর ফলে বাবরি মসজিদ ও আল আকসা মসজিদ নিয়ে মুসলমানরা কথা বলার নৈতিক অধিকার হারালেন। এমনকি তারা মনে করেন এর ফলে এরদোগান-মোদি-নেতানিয়াহুর মধ্যে আর কোনো পার্থক্য থাকল না। তুরস্কের চলমান অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ, উচ্চ মূল্যস্ফীতি ও বেকারত্বের ফলে সৃষ্ট পরিস্থিতে জনমতকে অন্য খাতে প্রবাহিত করার কৌশল হিসেবে প্রেসিডেন্ট এরদোগান এ সি'দ্ধান্ত নিয়েছেন বলে কেউ কেউ মনে করছেন।

এর মধ্যে আগামী নির্বাচনে জয়লাভের আকাক্সক্ষাও কাজ করছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ মতের সমর'্থকদের মধ্যে ওয়াশিংটন ইনস্টিটিউট ফরেনিয়ার ইস্ট পলিসির সোনার ক্যাগা'প্ত েও আছেন। তুরস্কের ভূ-রাজনীতি বিশেষত সাইপ্রাস ও ভূমধ্যসাগর ইস্যুতে গ্রিস-ইসরাইল জোটের সাথে বিরোধ, লিবিয়া ও সিরিয়া ইস্যুতে আন্তর্জাতিক রাজনীতি এবং সর্বশেষ মসজিদে আকসা-ফিলিস্তিন ইস্যুতে তুরস্কের বর্তমান ভূমিকার প্রেক্ষাপটে আয়া সোফিয়াকে নিয়ে এ সময়ে তুরস্কের এমন সি'দ্ধান্তকে অন্য ই'ঙ্গিতবহ বলেও কেউ কেউ মনে করেন। আগামীর তুরস্কের রাজনীতি যে আরো প্রো-ইসলামিক হবে, এটি খুব ভালোভাবেই বোঝা যাচ্ছে বলে তাদের ধারণা। আন্তর্জাতিক বিশ্লেষক সোনার ক্যাগা'প্ত ের বক্তব্যেও এ মত প্রতিফলিত হয়েছে। তার মতে, কামাল আতাতুর্কের ধ'র্মনিরপেক্ষ বিপ্লবের প্রত্যক্ষ বিরোধিতা করে এরদোগান তার ইসলামের ব্র্যান্ড চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টায় এমনটি করেছেন। তিনি বলেন, আতাতুর্ক ৮৬ বছর আগে ধ'র্মনিরপেক্ষতা প্রতিষ্ঠা করার জন্য এটিকে জাদুঘরের মর'্যাদা দিয়েছিলেন, তেমনি এরদোগান ধ'র্মীয় বিপ্লবকে সামনে আনার জন্য একে আবারো মসজিদ বানিয়েছেন।

কেউ কেউ মনে করেন যে, তুরস্কের একটি জাদুঘরকে মসজিদে পরিণত করার রায়ে পাশ্চাত্য দুনিয়া যে প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে, তা মতলবি চিন্তাপ্রসূত। আয়া সোফিয়া ইস্যুটি সরব হলেও পশ্চিম তীরে ইসরাইলের অবৈ'ধ বসতি স্থাপন ও ফিলিস্তিনি নিধন, কাশ্মিরে দমনপীড়ন কিংবা ভারতের এনআরসির বিরু'দ্ধে তাদের কথা বলতে দেখা যায় না। এটি কাম্য নয়। আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পুনঃরূপান্তরের ফলে তুরস্কের অর্থনীতিসহ নানা সেক্টরে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। এ সি'দ্ধান্ত দেশটির পর্যটন শিল্পে মা'রাত্মক প্রভাব ফেলবে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে। তবে এরূপ আশঙ্কা কতটুকু সত্য হবে, তা এখনই নিশ্চিত করে বলা যায় না। তা ছাড়া উপর্যুক্ত আলোচনা শেষে বলা যায় আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পুনঃরূপান্তরের ফল ভবি'ষ্যৎ প্রেসিডেন্ট এরদোগান বা তুরস্কের জন্য কেমন হবে? শুভ নাকি অশুভ? এ প্রশ্নের চূড়ান্ত জবাব দেয়ার এখনো সময় আসেনি। এ জন্য অ’পেক্ষা করতে হবে। প্রেসিডেন্ট এরদোগান কতটা বিচক্ষণতার সাথে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে পারবেন, তুর্কি জনমত তাকে কতটা সমর'্থন জানাবে এবং সর্বোপরি মুসলিম বিশ্বসহ এরদোগানের বিশ্বমিত্ররা এ প্রশ্নে কিভাবে তার পাশে থাকবে- এর ওপরই নির্ভর করছে এরদোগান ও তুরস্কের ভবি'ষ্যৎ।