বগু'ড়ায় ৫ মাস ধরে পু’ত্রবধূকে ধ’র্ষ’ণ

বগু'ড়ার দুপচাঁচিয়া উপজে'লায় গত পাঁচ মাস ধরে পু’ত্রবধূকে একাধিকবার ধ’র্ষণের অ’ভিযোগ উঠেছে এক কবিরাজের বি’রু'দ্ধে। এ ঘটনায় আব্দুল মোমিন (৪০) নামে স্থা’নীয় ওই ক’বিরাজকে গ্রে'’'প্ত ার করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার সন্ধ্যা ৬টায় আব্দুল মোমিনকে গ্রে'’'প্ত ার করা হয়। প্রাথমিক জি’জ্ঞাসাবাদে তিনি অ’পরাধ স্বী’কার করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

নি’র্যাতনের শি’কার তরুণীর বরাত দিয়ে দুপচাঁচিয়া থানার ভারপ্রা'প্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, ‘ধ’র্ষণের শি’কার মে’য়েটির বাড়ি নোয়াখালী জে'লায়। আট' মাস আগে তার বিয়ে হয়। তারপর থেকে মে’য়েটি শ্ব’শুরবাড়িতেই ছিল। মে’য়েটির পরিবার তাদের বি’য়ে মেনে না নেওয়ায় তিনি আর নোয়াখালী যাননি।’

আব্দুল মোমিন গ্রাম্য ক’বিরাজ জানিয়ে ওসি বলেন, ‘তিনি পু’ত্রবধূকে তার স’''ঙ্গে শা’রীরিক স’ম্পর্ক স্থাপন করতে প্রস্তাব দেন। তিনি বলেন যে তার স’''ঙ্গে একজন কামেল জ্বিন আছে। শা’রীরিক স’ম্পর্ক স্থাপন করলে সেই জ্বিন খুশি হয়ে তার মা-বাবার স’''ঙ্গে স’ম্পর্ক স্বাভাবিক করে দেবে। এরপর নানা প্র’লোভন দেখিয়ে তিনি শা’রীরিক স’ম্পর্ক করতে বা’ধ্য করেন। বি'ষয়টি কাউকে জানালে মে’রে ফে’লবেন বলেও হু’মকি দেন।’

গত পাঁচ মাস ধরে আব্দুল মোমিন মে’য়েটিকে একাধিকবার ধ’র্ষণ করেছে বলেও উল্লেখ করেন মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, ‘সর্বশেষ গত ৪ ফেব্রুয়ারি সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বাড়িতে একা পেয়ে তাকে আবারও ধ’র্ষণ করেন মোমিন। পরে সন্ধ্যায় স্বামী বাড়ি ফিরলে পুরো ঘটনা জানিয়ে মে’য়েটি তার এক মামা'র বাড়িতে আ’শ্রয় নেন।’

গ্রে'’'প্ত ারের বি'ষয়টি নিশ্চিত করে মা’মলাটির ত’দন্ত কর্মকর্তা দুপচাঁচিয়া থানার এসআই শফিকুর রহমান বলেন, ‘ধ’র্ষণের শি’কার না’রীর মেডিকেল পরীক্ষার জন্য আজ রোববার বগু'ড়া শ’হীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে। সেই স''ঙ্গে আব্দুল মোমিনকে আ’দালতে তোলা হবে।’